মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ভাষা ও সংষ্কৃতি

বানারীপাড়া উপজেলার ভূ-প্রকৃতি ও ভৌগলিক অবস্থান এই উপজেলার মানুষের ভাষা ও সংস্কৃতি গঠনে ভূমিকা রেখেছে। বাংলাদেশের দক্ষিণে অবস্থিত এই উপজেলার ভাষার মূল বৈশিষ্ট্য বাংলাদেশের অন্যান্য উপজেলার মতই, তবুও কিছুটা বৈচিত্র্য খুঁজে পাওয়া যায়। যেমন কথ্য ভাষায় আঞ্চলিক ভাষার প্রবণতা রয়েছে।

এ উপজেলার মানুষজন বরিশালের আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলেন। তবে বিশারকান্দি, ইলুহার ইউনিয়নের বিল এলাকার কিছ্য কিছু মানুষের মুখে পিরোজপুরের আঞ্চলিকতার টান রয়েছে।

 

বরিশালের আঞ্চলিক কয়েকটি শব্দ:-
পেয়ারা-হব্রি,
নারিকেল-নাহোইল,
রান্নাঘর-ওশ্যা,
পাতিল-পাইলা,
মোরগ-রাওয়া,
শিম-উশ্যি,
পেঁপে-পোম্বা,
জাম্বুরা-ছোলোম,
জামরুল-লকট,
কবুতর-কইতোর,
মুরগী-মুরহা,
বিড়াল-বিলোই,
সাঁতার-হাতোর,
বোকা-বোগদা,
ড্রয়িংরুম-আইত্না,
স্টোররুম-উগোইর,
ফ্লোর-খাডাল,
লাকড়ি-দাউর,
তরকারীর ঝোল -শালুনের হুররা,
লাউ- কদু,
ধান খেত- কোলা,
গোছল করা- নাইতে যাওয়া,
উঠান-উডান,
পেঁপে - কোম্বা,
শসা- হোয়া ,
গুর-মিডা
বজ্রপাত-ঠাডা
ঝারু-পিছা
তেতুল-ট্যাংগা,
টাকি-চ্যাং ,
পেয়ারা-গইয়া
শিশু-গেদু,
বৃষ্টি-দ্যাওই,
টক-চুক্কা,
সকাল-বেইন্নাহাল,
সরিষার তেল-কউর্-রা ত্যাল,
চাষাবাদ-আইল্লাডি,
দাঁড়িপাল্লা-পালা-পোইরান,
কেরোসিন-কেরেস্তাল,
মাইর-কেনু,
হাস মুরগীর খাবার-আদার ,
ভেলা-ভুর,
চিরুনী-কাহোই,
গ্যানজাম-কের্তোন,

 

বরিশালের ভাষা:
১.(কোথায় যাস?)
-কোম্মে যাও আয়?

২.(ও সকালে আমাদের বাড়িতে আসবে)
-ও বেইন্নাহালে মোগো বাড়ি আইবে আনে।

২.(এরকম হা করে তাকিয়ে আছিস কেনো?)
-এরহম আক্কইররা চাইয়া রইছ কা?

৩.(এত কথা বলিস কেনো?)
-এ্যাতো প্যাচাল পোডো কা আয়?

৪.(এই দুপুরের রোদে মাঠের মধ্যে দাড়িয়ে আছিস কেনো?)
-এই দুহাইররা রৌদে কোলার মইদ্দে খাড়াইয়া রইছছ কা?

৫.(তোর বাবা তোকে ডাকছে। শিগগীর যা।)
-তোর বাফে/বাজানে তোরে বোলাইতে লাগজে। ছ্যাৎ কইররা যা।

৬.(তুই সারাদিন কোথায় থাকিস? কি করিস? তোকে খুজতে খুজতে প্রাণ বেড়িয়ে যায় আমার।)
-তুই হাঙ্গাদিন কোম্মে থাহো আয়?কি হরো? তোরে বিছরাইতে বিছরাইতে মোর পরান বাইরাইয়া যায়।

৭.(চাচা! আপনার ছেলে সবার সাথে খালি ঝগড়া বাধায়।)

কাক্কু/দুদু! আম্মের পোলায় ব্যাবাক্কের লগে এ্যাকছের কাইজ্জা বাজায়।

৮.(তোর মুখটা এত শুকিয়ে গিয়েছে কেন?)
-তোর থুতমাডা এরহম হুগাইয়া গ্যাছে কা?

৯.(আমাদের পাড়ার হাকিম চাচা হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েছে। একদম মারাত্মক অবস্থা)
-মোগো কান্দার হাকিম কাক্কু আচুক্কা অসুস্থ অইয়া পড়ছে। এ্যাক্কারে চ্যাতাইয়া হালাইছে।

১০.(আপনারা সবাই বরিশাইল্লা ভাষা শেখবেন, বলবেন)
-   আম্মেরা ব্যবাক্কে বরিশাইল্লা ভাষা হেকপেন, কইবেন।

আঞ্চলিকতা এ অঞ্চলের নানুষের আচার-আচরণ, খাদ্যাভ্যাস, ভাষা, সংস্কৃতিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। এই এলাকার ইতিহাস পর্যালোচনায় দেখা যায় যে বানারীপাড়ার সভ্যতা বহুপ্রাচীন। এই এলাকায় প্রাপ্ত প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন প্রাচীন সভ্যতার ধারক ও বাহক । সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে বানারীপাড়ার  অবদানও অনস্বীকার্য।

 

যেসব সরকারী  ও বে-সরকারি সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা বানারীপাড়ায় কাজ করছে সেগুলো হলোঃ

১। উপজেলা শিল্পকলা একাডেমী, বানারীপাড়া

২। নতুনমূখ সাহিত্য ও সংস্কৃতি পরিষদ

৩। অনুশীলন সাংস্কৃতিক নিকেতন।

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter